হজমশক্তি সুস্থতার অন্যতম চাবিকাঠি

হজমশক্তি ঠিক রাখা সুস্থতার অন্যতম চাবিকাঠি। এ জন্য কিছু স্বাভাবিক কাজই একটু সতর্কভাবে করতে হবে। হজমশক্তি বাড়ানোর উপায় নিয়ে আজকের টিপস।

শারীরিক অনুশীলন

শরীর সচল রাখলে হজমও সহজ হবে। এ কারণে নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম বা অনুশীলনকে গুরুত্ব দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞরা।

পর্যাপ্ত পানি

পানি পান করার কোনো বিকল্প নেই। প্রচুর পানি পান করলে পরিপাকতন্ত্রও সঠিকভাবে আর্দ্র থাকে এবং হজম সহজ হয়। তবে খাবারের সঙ্গে বেশি পানি পান করা যাবে না। খাওয়ার কিছুক্ষণ পরে পানি পান করতে হবে।

এনজাইমযুক্ত খাবার খান

যেসব খাবারে এনজাইম আছে, সেসব বেশি করে খেতে হবে। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে দই, দানাদার খাবার ইত্যাদি। এ ছাড়া আদা কিংবা পুদিনা পাতাও হজম সহায়ক।

আঁশযুক্ত খাবার

খাবারের আঁশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যেসব খাবারে পর্যাপ্ত আঁশ নেই, সেসব খাবার সীমিত খাওয়াই ভালো। শাক-সবজি ও ফলমূলে পর্যাপ্ত আঁশ থাকায় সেগুলো খেতে হবে।

নিয়মিত খাবার গ্রহণ

খাওয়ার সময়টি যেন প্রতিদিন একই থাকে। শরীর পরবর্তী খাবারের সময় অনুযায়ী অভ্যস্থ হয়ে ওঠে এবং সে অনুযায়ী পাচক রস নিঃসরণ করে। কিন্তু খাবারের সময় ঠিক না থাকলে এ প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হয়, হজমে গণ্ডগোল হয়ে যায়।

চা-কফি সীমিত

কয়েক কাপ চা-কফি পান করতে বাধা নেই। বাড়তি ক্যাফেইন পেটে গেলে হজমশক্তি কমে যায়। এ ছাড়া খাবারের অন্তত এক ঘণ্টা পরে চা-কফি পান করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *